স্যাঁতস্যাঁতে প্রেম

শুভায়ন মাঝি
এক ফাঁকা বাসস্টপে খালি দুটো প্রাণী অপেক্ষা করছে... খালি দুটি প্রাণী.... দুটি বললেই বেশ ভাল লাগে.....

চারদিকে ঝিরঝিরে বৃষ্টি... সেই বৃষ্টির ঝাঁট এসে লাগছে ওদের গায়ে.... হাল্কা ভিজছে.... এই স্টপেজেটায় আর কেউ নেই.... তার উল্টোদিকের চায়ের ছোট দোকানটাও বন্ধ আছে.... তাই বলা যায় পরিবেশ একদম নিশ্চুপ... নিঃঝুম... আর দারুণ রকমের রোম্যান্টিক.... চারদিকে গাছের পাতার সবুজ রঙের প্রতিফলনে ওদেরকেও খানিক সবুজ সবুজ লাগছে.....

কিন্তু পরিবেশের মতই ওরাও সতেজ....প্রাণবন্ত...কিন্ ু চুপচাপ...কেও কারুর সাথে কথা বলছে না.... একবার এ ওর দিকে, ও এর দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছে....আর ভাবুক মনে রাস্তার দিকে তাকাচ্ছে.... বৃষ্টিতে চারদিকে যেন শান্তির নাচ চলছে....বৃষ্টির ফোঁটা একদম গুড়িগুড়ি..... কেউ সোজা হয়ে পড়ছে না মাটিতে....হাওয়ার সাথে এদিক ওদিক পালাচ্ছে.... যেন খেলা পেয়েছে..... ওরা দুজনে হয়ত তাই দেখছে....

জলের ছিটে এসে ওদেরকে সামান্যই ভিজিয়েছে বললাম, তাতেই ওরা মাঝে মাঝে ঠান্ডায় কাঁপছে.... ধিরে ধিরে কুয়াশাও ঘিরতে শুরু করল... পাহাড়ি ভ্যালির বুকে এই নির্জন বাসস্টপে ওরা ঠিক করল একে অপরের কাছে যাবে... প্রাথমিক লজ্জা কাটিয়ে... এই রোম্যান্টিক আবহাওয়ায় ওদেরও একটু উষ্ণতার প্রয়োজন বৈকি....

কাছাকাছি আসতে একে অপরের গায়ে গা ঘষাঘষি করে দাঁড়াল... মনে মনে হয়ত একে অপরকে আরো চাইছে... কারন ততক্ষণে একটা নতুন প্রেম কাহিনির পত্তন হয়ে গেছে....

কতক্ষণ কাটল জানি না, তবে চায়ের দোকানটা এবার খুলে গেল... একটা লোক দরজা খুলে একটু বেড়িয়ে চারদিকে দেখেটেখে ওদের দিকে তাকালো.... তারপর ভেতর থেকে একটা বিস্কুটের প্যাকেট এনে ডাকল,

\"আহ আহ তু তু তুতু তু...\"

আপনার মতামত জানান