দুটি কবিতা

প্রবুদ্ধ ঘোষ
বসন্তভোর

ভোরবেলার বিষাদসোহাগ শীত
আমার জন্যে রোদ ছিলনা ততো
জল সইলো জাগনলোভী পথ
বসন্তকাল কিশোরবেলার মতো

কিশোরবেলা পলাশ সম্মোহনে
স্বপ্নে পেল সোনাকাঠির ছোঁয়া
খুকি, ভোরের সরলমতি আলো
তোরই প্রেমে, আদরওমে ধোয়া

শহরজুড়ে শীত জমেছে এত
অভিমানী শুকনো পাতার ঘোর
বসন্তরা ঠোঁটের আলোয় মিশে
কী উপহার দিল, বিষাদভোর?





অগোছালো ঘরের কবিতা

মৌন ভাতের থেকে কিছুটা দূরত্বে নুন
জলের টানে টানে গড়িয়ে এসেছে ব্যাঞ্জন
চাঁদ মাথায় ক’রে জনপদ হেঁটে চলেছে বৃহত্তর
শহরের পথে; একটা ছেঁড়াফাটা মানচিত্রে ঢুকে
পড়ছে কতো জ্যামিতি। ফৌজি পোশাক ছিঁড়ে বেরিয়ে
আসছে মণিপুরের রক্ত
ফৌজি বুটের ভেতর ঘাস হয়ে জন্মায় কাশ্মীরের
আজাদি স্লোগান

দেশের ভেতরে বাইরে কাঁটাতারের খরচ বাড়ছে
দেশের ভেতরে বাইরে মৌলিক চাহিদা বাড়ছে

ভাত ভাঙ্গার স্বরবৃত্ত ছন্দে চুপ করে গেছে কারুবাসনা
পক্ষান্তরের দৈনন্দিনে চাঁদ ভুলে গেছে কারুবাসনা

এলোমেলো সরলরেখায় তবু,একটা অগোছালো ঘর।
বাইরে আগুন। ঘরে আয়, হাত ধর...

আপনার মতামত জানান