দুটি কবিতা

দীপ রায়

স্বভাবত
নুনে পোড়া দুপুরেরা বয়ে আনে বিতৃষ্ণা
হয়তো তখন তোমার সে একা বেডরুমে স্থিরচিত্তে ঘুম
গায়ের ঝাল মেটাতে দ্রুত ডায়াল প্যাডে হাত
আবার সমান দ্রুততায় বেজে ওঠার আগেই তুমি
কেটে দাও কল
পোষা আত্মভিমান...নিজেকে সংযত করে
একটি ভুলে যাওয়া মানিপার্স
কোথায় রাখা আছে বাজারের ফর্দ
দেওয়া হয়েছে কি ছেলের স্কুলের মাইনে
বা স্মরণে আসে কে তোমায় মনে করায়
সমস্ত ক্যালেন্ডারের লালদাগ
এহেন অস্ত্রসম্ভার ক্রমাগত কড়া নাড়ে দরজায়
অনুসন্ধান... অনুতাপ...আবিষ্কার...
তুমি রন্ধ্রে রন্ধ্রে খামখেয়ালিপানার স্বাদ পেতে শুরু করো
আর কী স্বচ্ছন্দে এক একটি গ্রাস তোমার মুখে উঠে যায়...

ইচ্ছেঘর
দীপ রায়
প্রতি শেষ দেখার একটা নতুন শুরুয়াত থাকে
ঘটনাক্রমে আমাদের মনের ভিতর গড়ে ওঠে
একটুকরো ইমারত অথবা ছাপোষা একচালা
আমরা তার অদৃশ্য দেয়াল আগলে দাঁড়াই
সেই ঘরের জানলার পর্দা জুড়ে আমরা
খুঁজে ফিরি দু-মুঠো দামাল হাওয়ার প্রাণ
অনুপুস্থিতির ধুলো...
এই ভাবে কিছু নিখোঁজ সময়ের নিরিখে
শুকনো রয়ে যায় সেই বাড়ির চৌকাঠ
এবং অবর্তমান বেয়ে কখনোসখনো
মেঝের বুকে আমরা নির্লিপ্ততায়
কয়েক ফোঁটা জল ঝরাই

আপনার মতামত জানান