দুটি কবিতা

অর্পণ গুপ্ত

একা

এই তো শেষবার.!
সাদাকাচ তুলে দাও...
এই তো শেষবার
অনন্ত পথ ধোঁয়া ধোঁয়া মিশে যাচ্ছে তীর্থের দিকে...
মিলে যাচ্ছে খইরেখা,মিলে যাচ্ছে কষ্ট করে জমানো জীবন..
আরো দূর অন্ধকারে কোনো আলোর দিকে চলে যাচ্ছে চাকা।
আমরা ছড়ানো খই-এর মতো পড়ে আছি
এই তো শেষবার।
চোখ মেলে দেখ-
পৃথিবী হাতছানি দিয়ে ডাকে,
আমার শরীর বেয়ে শিকড় বুনে চলেছে হলুদ ফুল
আমার চোখের কোনে জল থই থই নদী
আমার দুই বুকে মাথা রেখে শুয়ে আছে না-মেলা হিসেবের খাতা
ছড়ানো খই-এর মতো পড়ে আছি।
পড়ে আছি একা।
অবিরত সংগ্রাম ছেড়ে চলে যাচ্ছ তুমি!
আমি পড়ে আছি...
একা!







নীচু


আর একটু নীচু হলে হরিনাম জপতে হবে।

তাই আমরা আর নীচু হবো না।
কোমরে প্যাকাটি গুঁজে লিখবো
পেটে বালিশ বেঁধে লিখবো।

আমাদের দেহ ছোটো হয়ে যাবে,
ছোটো হয়ে যাবে কাঁধের হাত,ইঁদুরের মতো কুটকুট করে কামরাবো!

কিন্তু আর নীচু হবো না।
পুলিশ এলে গান গাইব,পিছনে থার্ডডিগ্রী দেবে...
দিক !

নামজপের জন্য,লিঙ্গে দুধ ঢালার জন্য
পকেটে ইষ্টনামের জন্য...

না!
নেচেকুঁদে দিন কাটিয়ে দেবো
কিন্তু আর নীচু হবো না কোনোদিন...

আপনার মতামত জানান