কবিতাগুচ্ছ

জুননু রাইন
আমি আমার হাতকে বলছি

কী অদ্ভুত !
আমি আমার হাতকে বলছি-
তোমাকে দিয়ে আমি আর কিছুই স্পর্শ করব না
আমি আমার পা'কে বলছি-
তোমায় ভর করে আমি আর হাঁটব না
আমি আমার চোখকে বলছি-
তোমাকে দিয়ে আমি আর কোনো দৃশ্যই দেখব না
এই কথা শুনে আমার অভিমান ক্লান্ত হয়ে আসছে
আর বুঝতেছে আমি তার কেউ না; তার কেউ নেই।




আমার জানালার পাশে

আমার জানালার পাশে একটি মৃত্যু হাসে
প্রলম্ভিত রাতের অন্ধকারে হেলান দিয়ে
ঠোঁটে সিগারেট হাতে হুইস্কির পেয়ালা নিয়ে
মৃত্যুটি দাঁড়িয়ে সর্বক্ষনা শরীরে
শত দু:খ-কষ্ট এড়িয়ে !

আমার জানালার পাশে
... একটি অমর মৃত্যু হাসে !

অপেক্ষারা দাঁড়িয়ে

অপেক্ষারা দাঁড়িয়ে; দাঁড়িয়ে আমার জন্য
এক ঝুড়ি ক্লান্তির ঝরা ফুল নিয়ে
আমার অলসতা দেখে নিরলসভাবে জড়ো হচ্ছে-
সারি বেঁধে ঘেরাও করার প্রস্তুতি নিচ্ছে;
আমি আমার ক্লান্তিগুলোকে জোড়ালো হতে দেখছি
আমাকে জোছনার শীতল ছায়ায় ম্লান করে দিতে ...

অপেক্ষারা দাঁড়িয়ে; দাঁড়িয়ে আমার জন্য
এক ঝুড়ি ক্লান্তির ঝরা ফুল নিয়ে।

বাঁচতে চাইলে একা হয়ে যাও

বাচঁতে চাইলে একা হয়ে যাও-
দেখা করো একান্তে নিজের সঙ্গে
বুকের বা'পাশে হাত রেখে ডাকো
তোমাকে ভাজ করে রাখো
সমর্পিত দীর্ঘশ্বাসে ...

স্বপ্নের কাছে ফিরিয়ে দাও-
প্রতারিত জীবনের খড়কুটো
বাচঁতে চাইলে বন্ধু ছুটো-
পৌঁছে যাও একান্তে নিজের কাছে।

আপনার মতামত জানান