খুন একটা আর্ট-৩

ঋষি সৌরক
“ঘুম” বলতে এক পরাবাস্তবকে বুঝি
যখন এই পৃথিবীটা আর সোজা থাকে না
সমস্ত শুন্য-অশুন্য ফণাকাটা অর্ধচেতন
মাথা বুজে আসে
একের পর এক স্মৃতিরা গোরুর পাতলা বুকের মত
প্রলেপ এর অরিগ্যামি জুড়ে দেয়

রক্তের গন্ধ এখন সাদা লাগে
টাটকা মৃত রাত টপকে ফিরে আসি ব্যাকুল সামাজিকতায়
ফিরে ফিরে আসি স্বপ্নে ও দুঃস্বপ্নে
সযত্নে তৈরী দেয়ালে মুছি হাত
তারপর ঝাঁপিয়ে পড়ি নিজের শরীরে

“ঘুম” বলতে বুঝি স্বশাসিত পাগলামোর ভস্মে ঘি
আমাদের নিয়মিত রাস্তাঘাট আমাদের অথৈ যাপন
অথচ আমরা ভেসে আছি অজানা তরলে মন্দ্রিত
অথচ কি সুস্পষ্ট দাগ রেখে গেছে কৃতঘ্নতা
অথচ কি নির্বিবাদে ফুটছে ফুল

আদিম রসায়নে
পাপ-পুণ্য পরস্পরের মৈথুনক্লিষ্ট অভিরাম

আপনার মতামত জানান