ভাইব্রেশন

লিপিকা ঘোষ


১,
নীলিম পিসি কে কবিতা লিখে দেওয়ার কথা । নীলিম পিসি এভাবেই কবিতার কথা বলে , সেতারের তারে তান তোলে । রাত গভীরের মধ্যে দিয়ে সকালের দিকে নরম হেঁটে যাওয়া আমার নীলিম পিসির । একবার জিজ্ঞেস করে কখনও 'ভালো আছিস তো বাবু ?' তারপর আশ্চর্য সব কবিতারা নেমে আসে আমাকে আর নীলিম পিসিকে ছুঁয়ে ।
২,
সেতারের তার থেকে একটা সুর খুলে নিয়ে নীলিম পিসি আমায় দিয়ে বলল 'নে, পরে ফেল' । তক্ষুনি সুরটা পরে ফেললাম আর অপূর্ব সব গান চার পাশ থেকে এসে ঘিরে ধরল আমাকে । কুয়াশার মত সব গান । নীলিম পিসি তখন সোফায় বসে হাসছে । কিছুক্ষন পর সে সব সুর আর গান গুলো আমায় ছুঁয়ে ছুঁয়ে বেরিয়ে যেতে লাগল জানলা দিয়ে । নীলিম পিসি আমার নরম ভালোবাসার মত নীলিম পিসি আবার ততক্ষণে সেতার তুলে নিয়েছে নতুন সুর বুনবে বলে .।

৩,
চোখ টলটল । আলগা করে আঁচলের খুঁট দিয়ে যে মুছে নেবে সে উপায়ও তো নেই । চশমার কাঁচ দিয়ে ঢাকা আছে , থাক । কে বা দেখছে ? ভালোবাসার কথায় অমন ধারা চোখ উছলায় । নীলিম পিসি'রও উছলে উঠল । নীলিমায় নীল হল । চোখের জলেরও অনেক রকম রং হয় । কে বলেছে হয় না ? এই তো হল । নীল হল । এখন নীলিম পিসির কাছে নীল রং খেলা করছে । নানান রকম নীল রং । ফিকে গাঢ় , কত কি । চোখে মুখে শাড়ির ভাঁজে । পুরো বর্ষাকাল টা'র রং এখন নীল হল। মিঞাঁ কি মলহার হল । মল্লার যখন বেঁধেছিলে মিঞাঁ তখনও কি এইরকম নীল রাঙ্গিয়েছিল আমার নীলিম পিসি ?

আপনার মতামত জানান