স্খলন

ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায়



সেসব নিহিত শোভা এতদিন প্রাঞ্জল ছিল নিশ্চিত-
আমরা যত্নে সেই কুয়াশার মেধা ছাপিয়েছি..
নিবিড় করেছি সব মধুমেহ, আড়ালে যাদের সব ‘অহমিকা’
আকাশমণির মতো উজ্জ্বল বোধ হয়ে বেঁচে থাকে

দেখেছি শব্দের বাঁধ,অকালেই খুঁজে চলে
উচ্চতর শাল্মলীর পরিচয়—
কণ্টিকারীও জানে,অজস্র ফুলের বেশে সেও আজ
শতাব্দীর কুন্ঠা হয়ে ঝরে যাবে,
তবুও ঋতুর শেষ—বধু সাজে অবচেতনায়

সম্ভবতঃ প্রকৃতিও এযাবৎ অজ্ঞাত নয়—
কিছু ফুল ঝরে যাওয়া প্রয়োজন,সন্দেহাতীত

আপনার মতামত জানান