আমাদের কালো সাম্যগান

মিতুল দত্ত
১২.
ভুলের বিরুদ্ধে ভুল। নদীর বিপক্ষে
সমতল। আঁশের রাজত্ব জুড়ে
ঋতুরঙ্গ। খড়ির পাঁচিল।

ভেসে ওঠো, মৃত শবরীর দেহ।
বেঁচে ওঠো, ম্যুরাল ভাঙার দিনে
মৌলালীর প্রাচীন যুবক।

জাহাজের ছদ্মবেশে চলে যাচ্ছে যারা,
তাদের নৌকোয় নাও। ক্ষমাঘেন্না করো।



৩০.
দু-এক দুঃখের পাশে শুয়ে আছে তিন-চার-পাঁচ
কেলেঙ্কারি ঘটেনি এমন পৃথিবীতে
ব্যাঙের ছাতার মতো ঘটনার চাষ হচ্ছে
তোমাকে বিপদে ফেলে
সরে পড়ছে তোমার প্রতিভা
বগলে পাউডার মেখে কোথায় বেরোলে তুমি?
চশমার আড়াল থেকে কাকে লক্ষ্য করো?
যুক্তিতর্ক থেকে দূরে, চেরাপুঞ্জীভূত মেঘ
পেয়ে যাচ্ছে বৃষ্টির শিরোপা
একটি কাঁচাপাকা চুল, স্পর্ধার তলানি থেকে
উঠে আসছে জীবনে তোমার




৩৪.
নাচনির নাগর ছিলে, কাঁচা কথা পাকা করে দিলে
বেখেয়ালে হেঁটেছ ঘরের মধ্যে, আর বিপদের
ষোলোআনা বালাই না রেখে
ঘুমিয়ে পড়েছ চর্যাপদের পাতায়
বিস্ফোরণ মাড়িয়ে যে স্কুলে যায়, তার সংখ্যালঘু
ছাত্রের খাতার মধ্যে সংখ্যাগুরু ভয়
যত সদুত্তর খুঁজে পায়, তাকে তুমি সম্মোহন বলো?
জিহাদ, না জল্লাদের দিন, শনি-রবিবারের বাজারে
জাতে ওঠা বাটখারাও জেনে গেছে কত ধানে কত…
আদেখলেপনার গুণ এভাবেও তোমাকে ভাঙায়!

আপনার মতামত জানান