চারটি কবিতা

প্রবীর রায়
১।
সন্দেহ

যে কোনও দৌড় এসে জড়িয়ে ধরলে মনে হয় অনেকটা জড়িয়ে ধরার মত
যে কোনও ছোঁয়া সরে গেলে মনে হয় অনেকটা সরে যাওয়ার মত
যে কোনও নিবেদনকে মনে হয় অনেকটা নিবেদনের মত
যে কোনও ঘৃণাকে মনে হয় অনেকটা ঘৃণার মত

এই বেঁচে থাকাকেও অনেকটা বেঁচে থাকার মতই মনে হয়


২।
অকথা কুকথা

শিশিরশুদ্ধ হয়ে সকালের বেলপাতা ফুল একটু দূরে প্রনাম
দুধে স্নান সেরে পাথরের মসৃণ বেয়ে ধ্বনি নামাচ্ছে মন্দির

বাকী সব পথঘাট থেকে ছেঁড়াফাটা থেকে ছাইকান্না থেকে
মানুষের রেখা বরাবর শুয়ে আছে

৩।
তোমার ফিরে আসা

চমৎকার এক বিকেল চারটে কুয়াশার ছেঁড়া দিয়ে আলোর হু হু ঠান্ডা
রঙ আর বাজী করবেনা ভেবেও হেঁটে আসছে সোয়েটার
এই পথ আড়াই মিনিট ধরে ছোট হতে থাকে
আর শিহরণকে ভাবি শীতজনিত এক উপহার

৪।
বিবেচনা

অতীতের আগে আরও অতীত থাকে চন্দ্রবিন্দুমত হয়ে থাকে
শূণ্যতার আগে আরও শূণ্যতা মহাশূণ্যে চিহ্নহীণ
ফুলশূণ্য বাগানে দাঁড়িয়ে নিমফুলের কথাই শুধু মনে পড়ে
যদিও জবাফুল মাত্রায় অনেক খোলামেলা

আপনার মতামত জানান