শার্লক হোমস অমনিবাস : একটি পুনরাধুনিক প্রকল্প

অনুপম মুখোপাধ্যায়




কে সেখানকার খুনি হতে চাইছে? জাদুকর!! কলকাতার কাগজে
এ সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু নিশ্চয়ই আশা করছেন না? শ্রীমতি
বিনোদিনীর হিসাবরক্ষক আমি। ‘কত্তামা তখন কিন্তু একাই
হাঁটছিলেন!’ অসাধারণ > ঠাসবুনোট। এই শুকনো মফসসলে
সদ্য কাটা মাংসের চেয়ে টাটকা ওঁর রঙ

আরো উপরে... আরো উপরে... আ-আআহ্ !!!!!!!!!!!!!!!!!
মিঃ হোমস
যখন ঝাঁকুনিতে বসে যাওয়া দাঁতের দাগগুলো
স্পষ্ট আরো স্পষ্ট হচ্ছিল
দূরে একটা বাংলা শব্দ... কিন্তু...
ঢেলায় ঢিসুম রেখে
স্থির









লম্বাআআআ। বুনোওওও। গোলাপ কাঠের পাইপ। গ্রসভেনর মিকচারের গন্ধ ছাড়া
আলবোলার নল মনে হচ্ছে।
উহ্ !!!! ঘরের মধ্যে আগুন লেগেছে

আমি কাশছি। আমার
দম আটকে আসছে। জ্যৈষ্ঠকালীন গুমোটে
এই ধোঁয়া আমার সর্বনাশ করছে

দম আটকে আসছে
দম আটকে আসছে
দম আটকে আসছে
দম আটকে আসছে
দম আটকে আসছে










আনমনে শিস দিতে দিতে হোমস ফরাশডাঙার দিকে হেঁটে যাচ্ছেন। এটা
এই কবিতার প্রথম লাইন হচ্ছে

আনমনে শিস দিতে দিতে হোমস চন্দননগর থেকে হেঁটে আসছেন। আঃ!! এটা
এই কবিতার শেষ লাইন হচ্ছে

আর মধ্যেকার লাইনগুলোকে
ছিঁড়তে ছিঁড়তে
ছিঁড়তে ছিঁড়তে
ছিঁড়তে ছিঁড়তে
আভিজাত্যের কুয়াশা সারা গায়ে মেখে
শ্রান্তিতে ঘুমিয়ে পড়ছে হাওড়ার হাউন্ড









ঊষ্ণ চ্যালাকাঠ। আঠার মতো বরফ লেগে থাকছে। একজনের
ফার-কোট তার চৌকিতে গিয়ে ঠেকছে

আবহাওয়াটা নিতান্তই অস্বাভাবিক। একরাশ জাফরান ফুল
জলঙ্গীর বন্যায়।

‘ছাতা সারাবে? ছাতা?’ ... কেউ
হেঁকে যাচ্ছে গলিতে। তুষারঢাকা স্লেজ আর
বৃষ্টিমাখা রিক্সার আওয়াজ
হোমস
তৃতীয় বিশ্বে আলাদা হচ্ছে না












রক্ত আর রক্তের ধারণার মধ্যে কেমন যে সসীম এক
প্রাণবন্ত লাল ! ‘খুব যে এক লম্বা জীবন... এই অদ্ভুত বাতাসে তা যেন
আরো উঁচু হয়ে উঠছে ওয়াটসন!’
পালকরণিত?
পালকরহিত?
এই রহস্যের মধ্যে এখন আর
জীবনের কথা আমরা তুলতে চাইছি না

ভাস্কর্যের মতো নয়। সফট
টয়ের মতো নয়

এই
ছাইয়ের আঁশ নিয়ে ব্যাকুল নাড়াচাড়া

আপনার মতামত জানান