দিনযাপন

ফজলে আজিজ আব্বাসী



কোনদিন আমার ভ্যালেন্টাইন হতে না চাওয়া একটি চশমাপরা মেয়ে, যাকে ডাকতাম চশমিশ বলে!

আমায় ওর জন্মদিনে একটা লেখা লিখে ওর টাইমলাইন এ পোস্ট করতে বলেছে। আর আমি, এমনি এক ভীতুর ডিম, ভয়ে মরছি এই যদি ওর বিরাট কোহলির মতন ইয়ো বয়ফ্রেন্ড দেখে ফ্যালে! কিংবা ওর গৌতম গম্ভীর দাদা?! আমি তো তখন ফ্যালফ্যাল চেয়ে থাকা একা আর বোকা মত ইরফান খান!

ওর হাইপাওয়ারের চশমার অভিমানে ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে গেছে আমার কলেজের তিনতলার সিঁড়িপথ। প্রীতম স্যারের ক্লাসগুলোর দিব্যি, আমি মেয়েদের কমনরুমের সামনে দিয়ে হেঁটে গেছি বহুবার, তবে মাথা নিচু করে।

ক্লাস শেষে ২৪ নম্বর ঘরে শুভ, চঞ্চল আর আমি মিলে বেঞ্চ বাজিয়ে গাইতামঃ

ও সোনিয়ো...

অন্য মেয়েরা ভাবতো বুঝি ওদের উদ্দেশ্যে গাইছি, কাশ, তুই বুঝতে পারতিস ঐ গানের অর্থ!

জন্মদিন আর আজ ভ্যালেন্টাইন ডে, দু'খানা উৎসব একসাথে, তাই উপহার এই লেখাটাঃ

দিনযাপন
**********

প্রেমের বেলুন তীরধনুকের আগায় লেগেও মুচকি হাসুক।
দুহাতভর্তি মেঘের বুকে মন ঠিকানা খুঁজতে আসুক।

পথের পাশে ছড়িয়ে থাকা দিনবদলের গান শোনায়
আমি দেখি নরম রোদে ঝলমলানো কানসোনা।

ধানের ক্ষেত আর শিশিরজলের আলিঙ্গনের দিনযাপন
একে অন্যের হাত ধরে হাঁটে মদিনা আর বৃন্দাবন।

ভোঁ বাজিয়ে প্রথম লোকাল এগোয় আধেক অন্ধকারে
একলা আমার গ্রাম তা দ্যাখে দাঁড়িয়ে মোরামপথের ধারে।

হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন ডে।

প্রতিটি মুহুর্ত ভরে উঠুক ভালবাসায়।

তোর, আমার, সব্বার।

আপনার মতামত জানান