অপেক্ষা

অংশুমান


- প্লিজ এমনি করিস না তৃণা।
- করিস না মানে? তোর সাথে কোনো কথা নেই আমার।
- দেখ, আমি একটু অন্যমনস্ক হয়ে গেছিলাম, কিন্তু তোর সব কথাই শুনেছিলাম।
- অন্যমনস্ক না গৌরব। আমি একটা সিরিয়াস কথা বলছিলাম। বাবা কাল বাড়ি ফেরেনি। মা-এর ওরকম অবস্থা। কিছু যদি হতো? আমি পারতাম একা সামলাতে?
- আমি তো আছি। কিছু হতো না। আমি সিরিয়াসলি তোর কথা শুনেছিলাম।
- ফালতু কথা বলবিনা গৌরব। আমি কথা বলে যাচ্ছি একটা চিন্তার বিষয় নিয়ে। তুই ফট্ করে বললি কি, আমার আলিয়া ভাট-কে হেবি লাগে, গুগলে ছবি দেখছিলাম।
- আরে ওটা চোখের সামনে শুধু খোলা ছিল। জাস্ট বলে ফেলেছি। কাকিমা কেমন আছে?
- যেমন আছে আছে। তোর জানার তো দরকার নেই। তোর সাথে কথা বলতে চাই না। ফোন রাখ।
- না না আমি আসছি তোর কাছে। আমি বেরিয়ে গেছি।
- একদম করবি না এটা গৌরব। আমার কিন্তু অতিরিক্ত মাথা গরম হয়ে আছে।
- আরে তুই সারারাত তারপর একবারও ফোন ধরলি না, কোনো এস এম এস করলিনা। আমার চিন্তায় হেবি ফেটেছে, প্লিজ। আমি বেরিয়ে গেছি, আসছি।
- না বলেছি গৌরব। তুই দায়িত্বজ্ঞানহীন, জাস্ট ক্যাজুয়াল তুই সব ব্যাপারে। আমি দেখা করতে চাই না।
- আমি বেরিয়ে গেছি তৃণা। আমি ট্যাক্সি নিয়েছি।
- আমি তোকে আসতে বলেছি? আমাকে না জিজ্ঞেস করে তুই বেরোলি কেন?
- সব ঠিক হয়ে যাবে। মাথা গরম করিস না এত, প্লিজ। আমি সরি কালকের ব্যাপারটার জন্য। তোর সাথে তিন বছরে কোনোদিন করেছি বল? ভালোবাসি তোকে...
- কী ঠিক হয়ে যাবে গৌরব? আমি একা মায়ের সাথে আছি। আমিই সামলাচ্ছি। তোকে কিছু ঠিক করতে হবেনা। যা হবে আমি বুঝবো। আমি ফোনটা রাখছি।
- রাখিস না। সেই রাত্রের পর এতক্ষণে ফোনটা ধরলি। এত অবুঝ হচ্ছিস কেন তুই? কী এমন করলাম!
- কথা বলতে ভালো লাগছেনা। তুই আসিস না। তোর সাথে দেখা করতে চাইনা। অবুঝ আমি নই, অবুঝ তুই।
- আমি সরি বলছি তো। আর এমন হবেনা। তারপর থেকে তো আমারো চিন্তা হয়েছে। আই লভ ইউ চিক্কু।
- ধুর! ভালোবাসা দেখাতে আসিস না তো আর আহ্লাদ করে, বিরক্তিকর। তুই ফিরে যা। পরে কথা হবে। রাখছি।
- আমি আসবোই। আমি প্রায় উল্টোডাঙা... প্লিজ তৃণা...
- প্রচণ্ড মাথা গরম হচ্ছে গৌরব। আসিস না। একটু খানিই তো এসছিস, ফিরে যা।
- না, আমি আসবোই। মরে গেলেও আসবো...
- ধুর! আমি ফোনটা রাখলাম...

ফোনটা রেখে দিল তৃণা। বেলা, প্রায় সাড়ে এগারোটা। এক ঘন্টা পর খবরের শীর্ষবার্তা, ভেঙে পড়লো উল্টোডাঙা ফ্লাইওভার। দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত দুই, নিহত তিন। নিহতের মধ্যে এক মোটরবাইক আরোহী, নাম বিমান সরকার, এক ট্যাক্সি চালক, হরি সিং ও ঐ ট্যাক্সিরই যাত্রী, এক যুবক গৌরব দাশগুপ্ত … … …

ঘটনার দশদিন হয়ে গেলো, তৃণা এক ফোঁটাও কাঁদেনি। গৌরব বলেছিলো, মরে গেলেও আসবে...

আপনার মতামত জানান