ইমেল ইত্যাদি

অভীক দত্ত

 


প্রিয় অপ্রতিম,
কেমন আছিস? অনেক দিন পর তোর কথা মনে পড়ছিল। কয়েক বছর আগে কলকাতায় থাকতে ফেসবুকে তোর সঙ্গে একটা মেয়ের বেশ কয়েকটা ছবি দেখেছিলাম। এখন আর দেখি না। ব্রেক আপ করে নিলি নাকি? জানাস।
অহনা

প্রিয় অহনা
তোর করা প্রথম প্রশ্নের উত্তরে বলি আমি ভাল আছি। প্রায় সাত বছর পরে ভিনদেশ থেকে আমার কথা মনে করায় চাপ নিয়ে তোর ইমেল করায় আমি যারপরনাই কৃতজ্ঞ এবং মুগ্ধ। আমার মুগ্ধতা গ্রহণ করবেন।
আপনার দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তরে জানাই হ্যাঁ আমার ব্রেক আপ হয়ে গেছে।
ভাল থাকবেন।
অপ্রতিম

প্রিয় অপ্রতিম
আমি জানতাম। তোর মত পাগলের সঙ্গে কেউ বেশিদিন টিকে থাকতে পারে না।
ইতি
অহনা

প্রিয় অহনা
হঠাৎ করে ইমেল করে রোস্টিং করা শুরু করলি কেন কারণটা কী আমি জানতে পারি? হতে পারে আমি একটু খ্যাপা, মাঝে মাঝে সাইকোর মত কাজ করি কিন্তু সে তো সবাই করে। এটাতে চাপের তো কিছু নেই তাই না?
ইতি অপ্রতিম

প্রিয় অপ্রতিম
মাঝরাতে ইমেলে প্রপোজ করে যে ছেলেটা ফোন অফ করে রেখে দেয়, তারপরে সারাজীবন যার আর টিকিটিও দেখতে পাওয়া যায় না, তাকে সাইকো ছাড়া আর কি কিছু বলে?”
ইতি অহনা

প্রিয় অহনা
আমি ঐতিহাসিক ভুল করেছিলাম। অ্যাকচুয়ালি তোকে প্রপোজ করার পরেই মিতালি আমায় প্রপোজ করে। আমি ভেবে দেখেছিলাম মিতালির অনেক টাকা, ফোকটে খাওয়া যাবে, সেসব ভেবে পাতি কেটে পড়েছিলাম।
পরে হিসেব করে দেখেছিলাম তুই একটা প্রসপেক্টওয়ালা মামণি ছিলি। এখন দিব্যি বিদেশেও পড়িস। তোকে ফাঁসাতে পারলেই লং টার্মে লাভ ছিল। যাই হোক, কী করব বল, লাইফটাই তো লোকে ভুল করে কাটিয়ে দেয়। আমারো ভুল হয়ে গেছিল।
অপ্রতিম

শুয়োরের বাচ্চা অপ্রতিম
তুই মরে যাস না কেন?
ইতি অহনা

প্রিয় অহনা
মরার কারণ বিশ্লেষণ করতে বসে দেখেছি পটাসিয়াম সায়ানাইট পাওয়া খুব চাপ। বাকি যে সব উপায় আছে তার মধ্যে একটাও এই ব্যথাহীন মৃত্যু উপহার দিতে পারে না। সো প্ল্যান ক্যান্সেল করতে বাধ্য হয়েছি।
তোর কাছে উন্নততর কোন মরার উপায় থাকলে বলতে পারিস। তুই তো বায়োটেক ফিল্ডে আছিস, পারলে পটাসিয়াম সায়ানাইড নিয়ে আসিস দেশে আসার সময়। তোকে যা দাম লাগে দিয়ে দেব। ভাল থাকিস।

ইতি
শুয়োরের বাচ্চা অপ্রতিম

অপ্রতিম
ইয়ার্কি হচ্ছে? আর আমার যদি পটাসিয়াম সায়ানাইড নিয়ে সত্যিকারের কাজ থাকত তাহলে তোকে সেসব পাঠিয়ে আমিও শান্তিতে থাকতে পারতাম। দুর্ভাগ্যের বিষয় সেটা সম্ভব না
অহনা
১০
প্রিয় অহনা
আমি যতদূর মানুষ চিনেছি, তাতে বুঝেছি মানুষ ধান্দা ছাড়া এক পাও নড়ে না। তুই এত বছর বাদে হঠাৎ করে আমার খোঁজ নিচ্ছিস কারণটা জানতে পারি?
ইতি শুয়োরের বাচ্চা অপ্রতিম
১১
বারবার নামের আগে ওই বিশেষণটা ব্যবহার না করলে হয় না?
১২
প্রিয় অহনা
তুই বললি বলেই করলাম। আর করব না। যাই হোক, কারণটা জানতে পারি?
অপ্রতিম
১৩
হ্যাঁ জানতে পারেন। আমি দেশে ফিরেছি। বাড়িতে বোর হচ্ছি। ভাবছিলাম তোর সঙ্গে দেখা করে তোর পিন্ডি চটকাই। তাই খোঁজ নিচ্ছিলাম বিয়ে থা করেছিস নাকি কিংবা আবার কোন একটা জুটিয়ে ঘুরছিস নাকি। এখন যা বুঝছি যে কোন সময় তোকে রাঁচি ডেসপ্যাচ করা যেতে পারে। তাই আর দেখা করার রিস্ক নিচ্ছি না।
ভাল থাকিস
বাই
১৪
প্রিয় অহনা
এই মুহূর্তে আমার সামনে বিশ্বসংসারের সব থেকে কঠিন কাজ পড়ে আছে। আমার হাতে একটা ক্রেডিট কার্ড, তাতে যে ক্রেডিট লিমিট আছে তা অ্যানালিসিস করে দেখলাম সেটা দিয়ে একটা অ্যাপেল আই ফোন লেটেস্ট এডিশন কেনা যায়, নইলে স্যামসাঙের সব থেকে দামী অ্যান্ড্রয়েড ফোনটা কেনা যায়। দুটো ফোন কেনা গেলে দুটোই কিনতাম। কিন্তু সেটা সম্ভব নয়। আমি ঠিক করেছি ফোনটা কিনে আর ক্রেডিট কার্ডের বিল দেব না। ব্যাঙ্ক থেকে লেঠেল বাহিনী পাঠালে বলে দেব বিজয় মালিয়া লন্ডনে বসে ম্যাচ দেখছে আর আমাকে বিল দিতে হবে? ইয়ার্কি হচ্ছে?
তোর কাছে একটাই রিকোয়েস্ট। যাবার আগে বলে যাস।
অ্যাপেল না স্যামস্যাং?
ইতি
অপ্রতিম
১৫
অপ্রতিম
আমার কাছে এই মুহূর্তে একটাই অপশন আসছে। রাঁচির টিকিট। এক্সিকিউটিভ ক্লাসে যাস ওই টাকাটা দিয়ে।
বাই
অহনা
১৬
প্রিয় অহনা
হ্যালোউইনের সময় যে কিউট ভূতটা সেজে ফেসবুকে ফটো দিয়েছিলি সেরকম সেজে কাল গোলপার্কে আসতে পারবি? আমার জন্য না। লোকজন কী বলে সেই রি অ্যাকশনটা নিতাম এই আর কী।
অপ্রতিম
১৭
স্টক করা হয় নাকি ফেসবুকে? ওই পোশাকে গোলপার্কে? আমাকে কি নিজের মত পাগল লাগে?
১৮
প্রিয় অহনা
জন্মদিনে বিরিয়ানি বানিয়েছিলি। পেট খারাপ হয় নি? বেজায় লোভ দিয়েছিলাম। কাল কখন আসছিস জানাস
অপ্রতিম
১৯
!!!!
সত্যি হয়েছিল। তুই তো পাগলের সঙ্গে অপয়াও বটে!
আর বাই দ্য ওয়ে আমি আসছি না ব্যস। আর সরি, এদ্দিন পর ডিস্টার্ব করার জন্য। তোর মত সুবিধাবাদী সাইকোর সঙ্গে আমি কোন কন্ট্যাক্ট রাখতে চাই না।
গো টু হেল
অহনা
২০
প্রিয় অহনা
আমার বহুদিনের ইচ্ছা আমেরিকায় তোর বাড়িতে ঘরজামাই থাকব। কবে নিবি জানাস।
অপ্রতিম
২১
কাল পাঁচটা। এক মিনিট দেরী করলে আমি চলে যাব।
আমি জানি যতক্ষণ না আমি বলব ততক্ষণ তুই বকে যেতি।
আর বাই দ্য ওয়ে, নোংরা জামা পরে আসবি, অনেকগুলো জুতো খেতে হবে তোকে

২২
জো হুকুম।
হ্যালোউইনের ড্রেসটা তো?
২৩
কাল দেখবি! শাঁকচুন্নি হয়ে তোর ঘাড়ে চাপব। আয় না একবার!!!

অভীক দত্ত


পেশায় কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। আদরের নৌকার সম্পাদক। গান, গল্প আর আড্ডা ছাড়া থাকতে পারি না। আর আদরের নৌকা ছাড়া বাঁচব না, এটা তো এতদিনে আপনারাও জেনে গেছেন...

আপনার মতামত জানান