আমি তো ভাবলুম...

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়

 

- কবিতার খাতাটা মাঝে মাঝেই হারিয়ে যায়... আজও খুঁজে পাচ্ছি না...
- ব্যাপক!
- ব্যাপক কিসে?!
- শুরুটা দারুণ!
- দূর!... আরে সত্যিই খুঁজে পাচ্ছি না! কাল রাতে পড়ার টেবিলে ছিলো... সকালে বেরোনোর সময় দেখি নেই...
- যাহ্‌... আমি তো ভাবলুম...
- ধুস্‌!


- চুমুক দিতে গিয়ে খেয়াল হ'ল... সিগারেটের ছাই ভাসছে।
- তারপর?!
- তারপর আর কি... পালটে দিতে বললাম।
- মানে?!
- মানে আবার কি... বিভূতিদা কাটিং দিয়ে গেলো, খেয়াল নেই কখন সিগারেটের ছাই উড়ে... এহ!
- যাহ্‌... আমি তো ভাবলুম...
- না না...


- এভাবেই বার বার বেড়া টপকে আসবে, মুড়িয়ে খেয়ে যাবে যত্নের গাছ।
- র‍্যাডিক্‌ল!
- ছাগল।
- সেকি! কেন? ভুল কি বললুম?
- আরে ছাগলই তো... নদাই জ্যেঠু বাগানে অতগুলো সাধের গোলাপগাছ বসালো... এদিকে বেড়াটা বাঁধেনি ঠিকঠাক... ব্যস্‌।
- যাহ্‌...আমি তো ভাবলুম...
- ছাগোওওল... ছাগোওওওওল... আর কিছু না।


- এই ভাবেই আড়াআড়ি ব্লেড চালিয়ে, সব খালি করে দিয়ে যাবে...
- এক্সিলেণ্ট, এই যে স্যাডোম্যাসোকিজ্‌ম - এর একটা...
- পকেট টা ফালাফালা করে দিয়েছে...
- যাআআতাআআআআ! কখন?!
- ২৩৫... কি মরতে উঠেছিলাম... এই পকেটে পার্স রাখিনি ভাগ্যিস... প্যাণ্ট টা গেলো!
- যাহ্‌... আমি তো ভাবলুম...
- হ্যাঁ ভাব ভাব... ভাবারই বিষয়... কোনও আনাড়ির হাতে ব্লেড পড়লে...


কানে ইয়ারফোন থাকা একটা অভ্যেস, আবার না থাকাও একটা অভ্যেস। না থাকার অভ্যেসটা আমার থেকে গেছে। তাই এমন কত কিছুই হাওয়ায় ভেসে আসে এদিক ওদিক থেকে... বেশ।
উলটোদিকে বসে থাকা মেয়েটিরও কানে ইয়ারফোন... থাকার অভ্যেস। কিছু একটা শুনছে... জানলার বাইরে তাকিয়ে, কিছু একটা দেখছে... ঠোঁট দু'টো মাঝে মাঝে নড়ছে, কিছু একটা বলছে... অথবা গাইছে।
আমিও দেখছি... শুনছি... গাইছি -
শ্যামের বাঁশিটা অ্যারেঞ্জমেণ্টে বাঁধা... বাঁধা
হেডফোনে শুনে গান গেয়ে ওঠো রাধা!

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়


ব্যাঙ্গালোর প্রবাসী জয়দীপের কাজই হল উইকেন্ডগুলি এদিক সেদিক ঘুরে বেড়ানো, ফটোগ্রাফিও তার সাথে যুক্ত হয় বটে। গদ্যে পদ্যে সমান সাবলীল জয়দীপ আদরের নৌকার সহ সম্পাদনার কাজ করে চলেন নিঃশব্দে। এবার তার ব্লগ পড়েই বরং পাঠক আরও জানুক তার সম্পর্কে

আপনার মতামত জানান