জনাব সমীপেষু

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়

 

জনাব সুমন,
রিয়াধের এক শেখ একজন প্রৌঢ়া ভারতীয় (আপনার মত ধর্মকে গুরুত্ব দিচ্ছি না) গৃহপরিচারিকার হাত কেটে নিয়েছে... শুনেছেন?
তারও কিছুদিন আগে... একজন ব্যক্তি (ধর্মটা ছবি দেখলেই চেনা যায়) তার মেয়েকে হত্যা করেছেন, সেই শিশুকন্যা মুখ ঢাকতে ব্যর্থ হয়েছিল বলে। দেখেছিলেন?

ভাজপা-সংঘ মিলে যে ফাসিবাদী হিন্দুত্ববাদের অপভ্রংশকে প্রতিষ্ঠা করার নিষ্ফল চেষ্টা চালাচ্ছে... তার বিরুদ্ধ-মনোভাব নিয়ে থাকা মানুষের সংখ্যা খুব একটা কম নয়। অনেকেই সচেতন ভাবে ভাজপা এবং সংঘের কায়দাটা বুঝতে পারছে। হয়ত পরের নির্বাচনে ভাজপার বিপক্ষেই যাবে এই সব। তাও ভাজপা ভাল ফল করবে কারণ নির্বাচনে স্ট্র্যাটেজি-টাই শেষ কথা (সে আর আপনার থেকে ভাল কে জানবে)। ভোটের অঙ্ক, ক্ষমতা... আর ফাসিবাদকে সাধারণ মানুষের সমর্থন করা বা না করা...এগুলো সব এক খাতে বয় না। অন্ততঃ আমাদের দেশে তো একেবারেই নয়! ফিরোজ গান্ধী স্বাধীনতার কয়েক বছর পরেই সরাসরি নেহরুর বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিলেন সংসদের ভেতরে বাইরে। ইন্দিরা গান্ধীর সময় প্রতিবাদ হয়েছে... এখনও হচ্ছে এবং হবে। একের পর এক সাহিত্যিক সাহিত্য অ্যাকাডেমী থেকে বেরিয়ে আসছেন, স্বীকৃতি ফিরিয়ে দিচ্ছেন... এও তো সেই প্রতিবাদেরই অংশ, নাকি তাঁরা বোঝেন না কিছুই?

কিন্তু একটা যদি নির্দিষ্ট অ্যাজেন্ডা দাঁড়িয়ে যায়... একটি ধর্ম বাকি সব ধর্মকে এই দেশে শেষ করে দিচ্ছে। তাহ'লে আপনি সেই ধর্ম বিভেদের আগুনকেই ফুঁ দিয়ে যাচ্ছেন ক্রমাগত... আপনার অনুগামীদের একটু একটু করে বিষিয়ে দিয়ে। কায়দাটা সামান্য বোধ থাকলেই বোঝা যায়। যারা নরাধম... তারা নরাধমই। সে যে ধর্ম, যে জাত... যে গায়ের রঙেরই হোক। এটা যদি মেনে নিতেন এবং উদারভাবে সকলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতেন... তাহ'লে বুঝতাম আপনার লেখা গানগুলোর যা কথা... তা আপনি মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। কিন্তু ইদানীং একেবারেই তা আপনাকে করতে দেখি না। মায়নামারে 'Military Junta' কোন ধর্মের লোককে কী ভাবে মারত গুণে গুণে দেখা হয়? বোকো হারাম ঠিক কী চিন্তা করে গ্রামগুলোকে একদম শেষ করছে বলুন তো? আইসিস কী ভাবে গর্ভপাত করতে বাধ্য করে জানেন? বাংলাদেশে রাজীব হায়দার থেকে নিলয় নীল... এতগুলো খুনের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে চক্ষুশূল কেন মনে হচ্ছে আপনার? (এটা জেনে রাখবেন, বাংলাদেশে ব্লগারদের হত্যা নিয়ে যতজন সরব হয়েছে, তারা থেকে অনেক বেশি ভারতবাসী সরব হয়েছে ইখলাখের পরিবারের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা, সেই ভারতীয়রা কে কোন ধর্মের গোণার প্রবৃত্তি নেই আমার... গুণলে হিঁদু নেহাৎ কম হবে না) সিরিয়া থেকে অতগুলো সর্বহারা জার্মানীতে ঢুকতেই সৌদিদের হঠাৎ মসজিদ তৈরী করে দেওয়ার কথা মাথায় এলো কেন বলুন দেখি? জামা-কাপড়, অন্নসংস্থান, জীবিকা... এসবের ঊর্দ্ধে মসজিদ বুঝি?
৭১ এ বাংলাদেশে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেওয়া, মা-মেয়েদের যোনিতে কাঁচ গুঁড়ো ঢুকিয়ে দেওয়া সেই সব নরাধমদের মধ্যে যদি কেউ দিনে পাঁচবার নামাজ পড়ে... বা রসুলের নাম নেয় চোখ বুঁজে... তাহ'লে সঅঅঅঅব কসুর মাফ?
বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালীন স্পষ্ট বলেছিলেন - 'বাংলাদেশে থাকা হিন্দু এবং বৌদ্ধদের জন্য আমার কষ্ট হয়। কিন্তু বাংলাদেশ ইসলামিক রাষ্ট্র, তাদের অনুরোধ ইসলাম গ্রহণ করে শান্তিতে থাকুন।' এইটা বোধহয় ঠিক ফাসিবাদ বলা যায় না... তাই না? বিএনপি আর রাজাকার-রা তো...

আচ্ছা, এবার বলুন দেখি... স্বৈরাচারী চিয়াং কাইশেক ঠিক কোন ধর্মের বাণীতে উদবুদ্ধ হয়ে অত্যাচার করত?
অথবা নর্থ কোরিয়ার ওই শিশুসুলভ নিষ্পাপ অভিব্যক্তির ডিক্টেটর কিম জং-উন ঠিক কোন ধর্মের দাস হয় ইচ্ছে মত হত্যার নির্দেশ দেন?
আবার দেখুন, স্তালিনগণ তো বামপন্থী সোভিয়েত... ঈশ্বরই মানতেন না। বলশেভিকগণ জার নিকোলাসকে সপরিবার (শিশু, কন্যাসহ) বন্দুকের সামনে রেখে শেষ করেন। রাসপুতিনকে তো কতবার মেরে মেরে হত্যা করা হয়েছিল, তা নিয়ে এখনও থিসিস চলছে। তো এই বলশেভিকদের উত্তরসুরী মহান স্তালিন এবং তাঁর পরবর্তী সোভিয়েত ডিক্টেটরগণ যে সাধারণ মানুষ থেকে বুদ্ধিজীবী... যাকে তাকে নিয়ে যা ইচ্ছে নির্দেশ দিতেন... তার কোনও ধর্মীয় ব্যাখ্যা আছে কি? নাকি কোনও হিন্দু গিয়ে 'Conspiracy'করে আসত সব জায়গায়?
উত্তর প্রদেশে উচ্চবর্ণের লোকেদের জানোয়ার মনবৃত্তি হঠাৎ উদিত হল? নাকি আপনি হিঁদুদের বিরুদ্ধে নতুন কিছু পেয়ে একটা বাড়তি অক্সিজেন পেলেন... যে গোটাহিন্দু ধর্মটাই আপনার হঠাৎ একটা 'Conspiracy' প্রমাণ করতে ইচ্ছে হ'ল? এত্তো কিছু খোঁজখবর রাখেন... এটা জানেন না যে আম্বেদকরের ঠাকুদ্দার ঠাকুদ্দার আমল থেকে উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, বিহার, মধ্যপ্রদেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে জাতিভেদের শিকার হয়ে আসছে দরিদ্র শ্রেণী? এবং তা শুধু হিন্দু নয়... অনেকেই এই ভাবে তাদের কপালে অন্ত্যজ স্টিকার মেরে রেখেছে। তারা কেউ মনু পড়েনি। আর যেসব সংবাদমাধ্যম প্রচার করছে বিবস্ত্র করার এই নক্কারজনক ঘটনা, তারাও এই 'দলিত' সেন্টিমেন্টকে বাঁচিয়ে রেখে যাবে এই ভাবে। একবারও এটা ভেবছেন যে বহুজন সমাজ পার্টি এবং শ্রীমতি মায়াবতী (যার যথেষ্ট ক্ষমতা), কেন এই দলিতদের বিরুদ্ধে এখন সেভাবে সোচ্চার হচ্ছেন না? রাজনীতিটা ঠিক কোথায়?
একটু কষ্ট করে বেনারস হিন্দু মহাবিদ্যালয়তে যাবেন, বা ওখানকার হাল-হকিকৎ খোঁজ নেবেন। ভাজপা জন্মানোর আগে থেকেই ওখানে অনেক কিছু ঘটেছে, ঘটে চলেছে রোজ। ব্রাহ্মণ-ক্ষত্রীয় (ঠাকুর) দের অত্যাচার যেমন থেকেছে... মুসলমান সামন্তদের অত্যাচারও হয়েছে একই ভাবে। এবং দেশে যদি একটাও হিন্দু না থাকে... তাও এই ধারা চলবে। ঠিক যেমন দরিদ্ররা পদদলিত হয় অন্য সব দেশে যেখানে হিন্দু জনসংখ্যা ০.১% ও নয়। তো এই ধর্মের মধ্যেই এমন Conspiracy-র বিভেদ দেখলেন শুধু? আপনি তো অনেক নেকাপড়া করা মানুষ... আর অন্য কোনও ধর্মে গুরুগিরি, নবীগিরি, ক্যাথলিকবাজী... এসব কিইইচ্চু নেই বুজি? ঔরঙ্গজেবের সঙ্গে তার সহোদর দারা শিকো'র মধ্যে বিভেদের মূল কারণ তখ্‌ত ছাড়া আরও কিছু ছিলো জনাব!

আপনার সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী মনোভাব, ভাজপা বিরোধীতা, এবং ফাসিবাদী সংঘের বিরোধীতার সঙ্গে যদিও বা সহমত হওয়া যায়... কিন্তু আপনার এই আগুনে ফুঁ দেওয়া পদ্ধতিটা একেবারেই সমর্থনযোগ্য নয়। মহাত্মা গান্ধী, বন্ধ ঘরে আলোচনা, জিন্নাহ্‌কেই স্বাধীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মেনে নিতে চেয়েছিলেন চাপের মুখে... দেশ ভাগটা আটকানোর জন্য। এই ব্যক্তি নিজে কতটা মানসিক চাপের মধ্যে জীবনের শেষ কুড়িটা বছর কাটিয়েছেন, তা এখন নাম-মাত্র নিন্দে শুরু করা জনগণ বুঝবে না। সেই যাই হোক, সর্দার প্যাটেল তখন মৃদু প্রতিবাদের কায়দায় আসল কথাটা ব্যারিস্টার গান্ধীর কানে তুলে দিয়েছিলেন... "আপনি সংখ্যালঘুদের কথা ভেবে একজন কে প্রধানমন্ত্রী করবেন... আর সংখ্যাগুরুদের দিকটা একটু ভাববেন না? যে এরপর ওদের কি হবে?"
আজকাল দেখি, আর কোনও জায়গায় কারও আঘাৎ লাগে না... বেশ বুকে ঘষে ঘষে কাটিয়ে দিচ্ছে রাতের পর রাত। শুধু একটা জায়গাতেই খুব জোরে লাগে... তীব্র বেদনা... সে হ'ল 'রিলিজিয়াস সেন্টিমেণ্ট'!
আর যেখানেই দে রে আঘাৎ, বেধরক মার
ধর্মীয় আবেগে আঘাৎ দিস্‌নি খবরদার
[সন্ত সুকুমার অনুপ্রাণিত]

এহেন পরিস্থিতিতে, আপনার মত দায়িত্বশীল সহনাগরিক তথা দেশবাসীর থেকে আমরা প্রত্যাশা করেছিলাম, কিছু সচেতন অবস্থান এবং প্রতিক্রিয়ার। কিন্তু আপনিও কোথাও একটা এই রিলিজিয়াস সেন্টিমেন্টের-ই শিকার হয়ে রয়ে গেছেন জনাব। এর বাইরে উঠতে চাইলেও, আপনাকে টেনে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। এবং আপনি এর মধ্যেই এখন বেশ ভাল আছেন। আপনার প্রতিটা প্রতিক্রিয়া তাই-ই বলছে। আপনার প্রতিবাদ ধর্মনিরপেক্ষ নয়, হিন্দুবিরোধী। যেটা সংঘেরই উলটো পিঠ।
সমগ্র হিন্দু-রা ষড়যন্ত্র করে দেশের দলিত এবং সংখ্যালঘুদের পায়ের তলায় রেখে দিয়েছে সহস্র বছর... এটা বলা, আর সমগ্র মুসলিম বিস্বজুড়ে সন্ত্রাসকে লালন করছে... এটা বলা... সমান পাপ।


কিছু অনুগামী আপনাকে এই ভাবেই 'বুড়ো ক্ষ্যাপানো'-র মত মাঝে মাঝে ক্ষেপিয়ে যাবে... আর আপনি অদ্ভুত ভারসাম্যহীন কিছু প্রতিক্রিয়া লিখে যাবেন। আর তারপর সময় বুঝে টুক করে সেই প্রতিক্রিয়া লুকিয়ে ফেলবেন। আপনার নামের সদব্যববার করে, বা আপনি এবং আপনার নামের সঙ্গে (কীর্তির সঙ্গে) নিজেকে কোনও ভাবে যুক্ত করে যাদের যা ফায়দা নেওয়ার তারা তা নিয়ে যাবে। চরম শুভাকাঙ্ক্ষী সেজে থেকেও বলবে না... পদ্ধতির মধ্যে কি সাংঘাতিক আফিম মিশে রয়েছে।
কিন্তু এর ফলে এমনিতেই নীল হয়ে থাকা মনগুলোর ভেতরে যা রাসায়নিক বিক্রিয়া ঘটবে... তার দায় আপনি নিজের বিবেকের কাছে অস্বীকার করতে পারবেন তো জনাব?

বুরা যো দেখন ম্যাঁয় চলা, বুরা না মিলেয়া কোয়ে
যো মুঁ খোঁজা আপনা, তো মুঝসে বুরা না কোয়ে।

কবীরের দোহা... যাকে হিন্দু আর মুসলিমরা নিজের বলে দাবী করেছিল মৃত্যুর পর। কেউ পায় নি।

আপনি 'কবীর' তো একেবারেই নন। আকাশ সমান মন ছিল কবীরের।
চট্টোপাধ্যায় হওয়ার দরকারই নেই।
আর 'সু'-মনও ঠিক বলা যাচ্ছে না এখন আর।

[মতামত লেখকের সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত]

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়

জয়দীপ চট্টোপাধ্যায়


ব্যাঙ্গালোর প্রবাসী জয়দীপের কাজই হল উইকেন্ডগুলি এদিক সেদিক ঘুরে বেড়ানো, ফটোগ্রাফিও তার সাথে যুক্ত হয় বটে। গদ্যে পদ্যে সমান সাবলীল জয়দীপ আদরের নৌকার সহ সম্পাদনার কাজ করে চলেন নিঃশব্দে। এবার তার ব্লগ পড়েই বরং পাঠক আরও জানুক তার সম্পর্কে

আপনার মতামত জানান